ঢাকা, সোমবার   ০৬ ডিসেম্বর ২০২১ ||  অগ্রাহায়ণ ২১ ১৪২৮

যুবসমাজকে আদর্শ দেশপ্রেমিক হিসেবে গড়ে তুলতে যুবলীগ প্রতিষ্ঠা করেছিলেন শেখ মনি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ১১:০০, ২৩ অক্টোবর ২০২১   আপডেট: ১১:০১, ২৩ অক্টোবর ২০২১

যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী মোঃ জাহিদ আহসান রাসেল

যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী মোঃ জাহিদ আহসান রাসেল

যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী মোঃ জাহিদ আহসান রাসেল এমপি বলেছেন, মুক্তিযুদ্ধকালীন বাংলাদেশ লিবারেশন ফোর্স তথা মুজিব বাহিনীর অন্যতম প্রধান কমান্ডার ছিলেন শেখ ফজলুল হক মনি।

দেশ স্বাধীন করার লক্ষ্যে মুক্তিযুদ্ধের জন্য গোটা বাঙালি জাতিকে ঐক্যবদ্ধ করার ক্ষেত্রে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে ধারাবাহিক আন্দোলন-সংগ্রামে অনন্য ভূমিকা রাখেন শেখ ফজলুল হক মনি। তিনি ছিলেন মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক ও যুবলীগের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান।

বঙ্গবন্ধুর নির্দেশে ১৯৭২ সালে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সমন্বয়ে বাংলাদেশের প্রথম যুব সংগঠন বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে এদেশে যুব রাজনীতির সূচনা করেন মনি। যুবসমাজকে সৃজনশীল ও আদর্শ দেশপ্রেমিক হিসেবে গড়ে তুলতে যুবলীগ প্রতিষ্ঠা করেছিলেন তিনি। 

১১ই নভেম্বর বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষে শেখ মনি ক্রীড়া চক্র কর্তৃক আয়োজিত 'প্রথম শেখ মনি ফুটবল টুর্নামেন্ট-২০২১'এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন। 

গতকাল শুক্রবার দুপুরে রাজধানীর কমলাপুর বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ সিপাহী মোহাম্মদ মোস্তফা কামাল স্টেডিয়ামে প্রতিযোগিতার উদ্বোধন করেন যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী মোঃ জাহিদ আহসান রাসেল ও আওয়ামী যুবলীগের চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস পরশ। 

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে শহীদ শেখ ফজলুল হক মনির প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জানিয়ে যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী বলেন, শেখ ফজলুল হক মনির নেতৃত্বাধীন মুজিব বাহিনীর সদস্য হিসেবে আমার পিতা শহীদ আহসানউল্লাহ মাস্টার দেরাদুন থেকে গেরিলা প্রশিক্ষণ নিয়ে সশস্ত্র গেরিলা যুদ্ধে অবতীর্ণ হন এবং দেশমাতৃকাকে স্বাধীন করেন। তবে আমাদের দুর্ভাগ্য, দুজনকেই রাজনৈতিক দুর্বৃত্তরা নির্মমভাবে হত্যা করে। 

প্রতিমন্ত্রী আশা করেন, শেখ মনি ফুটবল টুর্নামেন্টের মাধ্যমে একদিকে সমাজ থেকে মাদক, সন্ত্রাস ও জঙ্গীবাদ নির্মূল হবে। একই সঙ্গে নতুন নতুন উদীয়মান ফুটবলার সৃষ্টিতে অনন্য ভূমিকা রাখবে। এর মধ্যে দিয়ে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বজায় থাকবে। 

এ সময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মাইনুল হোসেন খান নিখিল, ক্রীড়া সম্পাদক নিজামউদ্দিন চৌধুরী পারভেজ, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাইনুদ্দীন রানা ও ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম রেজা।
নকআউট ভিত্তিক প্রতিযোগিতায় ২০টি অনুর্ধ্ব-১৮ ফুটবল দল টুর্নামেন্টে অংশ গ্রহণ করছে।

সর্বশেষ
জনপ্রিয়